শেয়ার করুন

স্বাধীনতা আমাদের গৌরব সেই গৌরব ধরে রাখতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে -আরিফুর রহমান সোহেল

স্টাফ রিপোর্টার ঃ  আমি গর্ববোধ করি আমি একজন বাঙ্গালী। আমি গর্বিত আমি মহান নেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের ...

”ওয়ালটন” পণ্যের প্রতি আস্থা ফিরেছে দেশের কোটি মানুষের

৯০ দশকে সাংবাদিকতায় আসেন এনায়েত ফেরদৌস। দৈনিক রুপালী হয়ে বর্তমানে ইংরেজি দৈনিক নিউজ টুডে’র সিনিয়র সাব এডিটর। সেই...

প্রাণের পাঁচটি মসলা পরীক্ষার নির্দেশ হাইকোর্টের

এনিউজ২৪.নেটঃ প্রাণ অ্যাগ্রো লিমিটেড কোম্পানির মরিচ, আদা, জিরা, ধনিয়া ও রসুনের গুঁড়ায় মানবস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর...

Joomla Templates and Joomla Extensions by JoomlaVision.Com

সাহিত্য-সংস্কৃতি

বাংলাদেশের সংস্কৃতি

 

বাংলাদেশের সংস্কৃতি বলতে দক্ষিণ এশিয়ার দেশ বাংলাদেশের গণমানুষের সাহিত্য, সংগীত, নৃত্য, ভোজনরীতি, পোষাক, উৎসব ইত্যাদির মিথষ্ক্রীয়াকে বোঝানো হয়ে থাকে অনেক ক্ষেত্রেই্ এই সংস্কৃতি ভারতীয় সংস্কৃতির থেকে ধার করা কিংবা প্রভাবান্বিত তবু বাংলাদেশের স্বকীয় কিছু বৈশিষ্ট্যের ভিত্তিতে বাংলাদেশের সংস্কৃতিকে আলাদা করার প্রয়াস পাওয়া যায়

বাংলা ভাষা সাহিত্যের ঐতিহ্য হাজার বছরের বেশি পুরনো ৭ম শতাব্দীতে লেখা বৌদ্ধ দোহার সঙ্কলন চর্যাপদ বাংলা ভাষার প্রাচীনতম নিদর্শন হিসেবে স্বীকৃত মধ্যযুগে বাংলা ভাষায় কাব্য, লোকগীতি, পালাগানের প্রচলন ঘটে ঊনবিংশ বিংশ শতাব্দীতে বাংলা কাব্য গদ্যসাহিত্যের ব্যাপক বিকাশ ঘটে বাংলাদেশের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম, নোবেল পুরস্কার বিজয়ী বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, সাহিত্যিক শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় প্রমুখ বাংলা ভাষায় সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছেন বাংলার লোক সাহিত্যও সমৃদ্ধ; মৈমনসিংহ গীতিকায় এর পরিচয় পাওয়া যায় আধুনিক সাহিত্যিকদের মধ্যে হুমায়ূন আহমেদ খুব বেশি জনপ্রিয় তাছাড়াও ছোটদের কাছে মুহাম্মদ জাফর ইকবাল, রকিব হাসান খুব জনপ্রিয় অন্যান্য প্রধান ধারার সাহিত্যিকদের মধ্যে কাজী আনোয়ার হোসেন, কবি শামসুর রাহমান, নির্মলেন্দু গুণ প্রমুখ জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছেন

মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ বাংলাদেশের প্রধান সামাজিক অনুষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে মুসলমান সম্প্রদায়ের উত্সব ঈদুল ফিত্ , ঈদুল আজাহ। তবে হিন্দু সম্প্রদায়ের দূর্গা পূজা, বৌদ্ধদের প্রধান উত্সব বুদ্ধ পূর্ণিমা, আর খ্রীস্টানদের বড়দিনও ঘটা করে পালিত হয়ে থাকে স্ব স্ব ধর্মীয় সম্প্রদায়ের মধ্যে এই দিবসগুলোতে রাষ্ট্রীয় ছুটি থাকে সার্বজনীন উত্সবের মধ্যে পহেলা বৈশাখ প্রধান গ্রামাঞ্চলে নবান্ন, পৌষ পার্বণ ইত্যাদি লোকজ উত্সবের প্রচলন রয়েছে এছাড়া স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস এবং ভাষা আন্দোলনের স্মরণে একুশে ফেব্রুয়ারি ষাড়ম্বরে পালিত হয়

বাংলাদেশের নারীদের প্রধান পোষাক শাড়ি অল্পবয়স্ক মেয়েদের মধ্যে, শহর-গ্রাম নির্বিশেষে সালোয়ার কামিজেরও চল রয়েছে একবিংশ শতাব্দিতে শহরাঞ্চলের কিশোরী-যুবতিরা পাশ্চাত্যের পোষাক শার্ট-প্যান্ট কিংবা জিন্স-কামিজ বা জিন্স-ফতুয়াও পরে থাকেন পুরুষদের প্রধান পোষাক লুঙ্গি, তবে শহরাঞ্চলে পাশ্চাত্যের পোষাক শার্ট-প্যান্ট প্রচলিত গ্রামাঞ্চলেও দাপ্তরিক পোশাক হিসেবে শার্ট-প্যান্টকে আভিজাত্যের অংশ মনে করা হয় বিশেষ অনুষ্ঠানে পুরুষরা পাঞ্জাবী-পায়জামা পরিধান করে থাকেন ধর্মীয় অনুষ্ঠানে পাঞ্জাবি বাংলাদেশী পুরুষদের অন্যতম অনুষঙ্গ

সংগ্রহঃ উইকিপিডিয়া থেকে

 

 

প্রখ্যাত সঙ্গীত শিল্পী মান্না দে আর নেই

স্টাফ রিপোর্টার:উপমহাদেশের প্রখ্যাত সঙ্গীত শিল্পী মান্না দে আর নেই। বৃহস্পতিবার ভোর ৩ টা ৫০ মিনিটে বেঙ্গালুরুর নারায়ণ হৃদয়ালয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯৪ বছর। গত ৮ জুন গভীর রাতে বার্ধক্যজনিত একাধিক রোগে আক্রান্ত হয়ে অত্যন্ত সংকটজনক অবস্থায় এই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হলেও মাঝখানে কিছুটা সুস্থ হয়ে উঠেছিলেন। কিন্তু তা সত্ত্বেও তাকে হাসপাতাল না ছেড়ে যাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছিল। সর্বশেষ গত সপ্তাহে আবার গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন মান্না দে। প্রবোধ চন্দ্র দে ভালো নাম হলেও মান্না দে নামেই তিনি পরিচিত ছিলেন। দীর্ঘদিন বড় মেয়ে সুরমা দের বাড়িতে ছিলেন বাংলা গানের এই জাদুকর শিল্পী। উল্লেখ্য, ১৯১৯ সালে ১ মে কলকাতায় জন্ম নিয়েছিলেন তিনি।

 
 

যে দেশে প্রতি ১০ জনে একজন লেখক

এনিউজ ২৪ . নেটঃ  আইসল্যান্ডে একটা প্রবাদ আছে- ‘এড গানগা মেড বক আই মাগানাম’। এর মানে হলো, প্রত্যেকের পেটেই একটা করে বই আছে। প্রবাদটা আইসল্যান্ডের বেলায় খুবই সত্য। দেশটিতে প্রত্যেক ১০জন লোকের মধ্যে একজনকে পাওয়া যাবেই যিনি বই প্রকাশ করেছেন। আইসল্যান্ডের রাজধানী রেকজাভিকে লেখকদের এড়িয়ে চলাই মুশকিল। দেশটিতে লোকসংখ্যা মোটে ৩ লাখ। কিন্তু লেখক অনেক, বইও অনেক। আর এখানকার লোকেরা পৃথিবীর যে কোনো জায়গায় চাইতে বই পড়েনও বেশি।এত যখন লেখক তখন বই প্রকাশ করা নিশ্চয় কঠিন? ক্রিস্টিন এইরিকডটির নামে তরুণ এক ঔপন্যাসিক বলেন, ‘তা তো বটেই। আমি আমার মা ও সঙ্গীর সঙ্গে থাকি। তারাও লেখক। প্রতিযোগিতার কারণে আমাদের এক বছর পরপর প্রকাশক খুঁজতে হয়।‌’এত লেখক থাকলেও লেখকরা ‘এখানে সম্মানিত। তাদের জীবনমান ভাল। তারা ভাল থাকে, টাকাও পায় ভাল।‌’ বলেন আগলা ম্যাগনাসডটির। তিনি নতুন আইসল্যান্ডিক সাহিত্য কেন্দ্রের প্রধান। তার কেন্দ্র সাহিত্য ও অনুবাদের জন্য রাষ্ট্রীয় সহযোগিতা দেয়।লেখকরা সবই লেখেন। গল্প, উপন্যাস, রূপকথা, ছোটদের বই। কিন্তু মজার বিষয় হলো আইসল্যান্ডে অপরাধ উপন্যাসের বাজার কমছে।আইসল্যান্ডের এই বই বিপ্লবের কারণ কী? বলা হচ্ছে, ভাল লেখকরা এসেছেন। তারা আকর্ষণীয় গল্প বলছেন। অর্থনীতির অবস্থাও দারুণ।তবে প্রযুক্তির চাপ আইসল্যান্ডেও পড়েছে। নতুন প্রযুক্তির কারণে ছাপা বইয়ের বাজার সেখানেও কমছে।সলভি জরোন সিগারডসন নামে আইসল্যান্ডের একজন লেখক বলেন, 'আমরা গল্প বলিয়ে জাতি। অন্ধকার আর ঠাণ্ডার দাপটে অন্য কিছু করার নেই। কাব্যিক এড্ডা বলুন আর মধ্যযুগের সাগা বলুন- আমরা গল্পের দ্বারাই পরিবৃত। ১৯৪৪ সালে ডেনমার্কের কাছ থেকে স্বাধীনতা পাওয়ার পর সাহিত্যই আমাদের পৃথক পরিচয় দিয়েছে।' আইসল্যান্ডে মানুষ কম। লেখক অনেক বেশি। কিন্তু তাদের মধ্যে সম্পর্ক দারুণ উষ্ণ। লেখকরা সবাই সবার ঘনিষ্ট। চেনাজানা। এই পরিস্থিতে শীতল দেশটাকে বইছে সাহিত্যের এক উপভোগ্য উষ্ণতা।

 
 

পিংকি‘কে জন্মদিনের শুভেচ্ছা

আজ ০৭ অক্টোবর নুসরাত সুলতানা পিংকি‘র শুভ জন্মদিন। এ দিনটিতেই তুমি এসেছিলে জগৎ ভুবনকে আলোকিত করতে। সুখ দুঃখ, আনন্দ আর বেদনার আবরনে তুমি কাটিয়েছো অনেকগুলো দিন। জীবনে আনতে চেয়েছো সফলতা, সমাজ আর সংসারকে দিতে চেয়েছো প্রতিষ্ঠার পরশ। তোমার জীবন সুন্দর ও সার্থক হোক, অনন্তকাল তুমি বেঁচে থাকবে সকলের স্নেহ, শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায়। তোমার শুভ জন্মদিনে অফুরন্ত শুভেচ্ছা।
শুভেচ্ছান্তে.........
শফিক ভাইয়া
তোমার সকল শুভানুধ্যায়ী।

 
 

আইডিসি জাতীয় বিতর্ক প্রতিযোগিতা ও বর্ষপূর্তি উৎসব-১৩

অন্যদিগন্ত নিউজ॥ আজ ২৪মে শুক্রবার থেকে শুরু হয়েছে ১০তম আইডিসি জাতীয় বিতর্ক প্রতিযোগিতা ও ২০তম বর্ষপূর্তি উৎসব-১৩। আইডিয়াল ডিবেটিং ক্লাব আয়োজিত রাজধানীর মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ ক্যাম্পাসে এ প্রতিযোগিতা চলবে আগামী ২৭ মে পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ১০ টা থেকে সন্ধ্যা ৭ টা পর্যন্ত।  প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন  স্কুলের প্রধান শিক্ষক সহ এনএনসি ব্যাংক কর্মকর্তা ও সকল শিক্ষক বৃন্দ।

 
 

সরকারী সহযোগীতা পেলে খ্যাতি ও কদর পাবে ঝিনাইগাতীর কোঁচনীদের তাঁতের কাপড় ও চাটাই

হারুন অর রশিদ দুদু খট্-খট্, টুকু-টুকু শব্দে বাড়ী মুখরিত সাদা-কালো, লাল-নীল, সবুজ সহ নানা রং এর সুতোয় বানানো হচ্ছে আদিবাসী কোঁচ সম্প্রদায়ের পরনের কাপড় যে দেশীয় তাঁতে কাপড় বুনানো হয়, তাকে কোঁচ ভাষায় বলা হয়বানাতাকতো কোঁচ পল্লীনওকুচী রাংটিয়া প্রায় প্রতি বাড়ীতেই কোঁচ মেয়ে শিল্পী তাদের বাপ-দাদার আমলের ঐতিহ্যবাহীবানাতাকতোতাঁত- এর মাধ্যমে অবসরে কাপড় বুনায় এবং চাটাই তৈরী করে শতকরা ৬০ ভাগ লোক এখানে আদিবাসী কোঁচ ফাঁকে ফাঁকে /৪টি গারো এবং মুসলমান বাড়ীও চোখে পড়ে প্রায় প্রত্যেক বাড়ীতেই হাতে বুনানো চিকন বাঁশ টানার খডু খডু শব্দ যেনো পাখির কিচির মিচির শব্দকেও হার মানায় কেউ বাঁশের তৈরী তাঁতে কাপড় বুনাচ্ছে কেউবা নতুন করে তাঁতে কাপড়েরজোতুলছে আবার কেউবা বাঁশের সাকুতে পেঁচাচ্ছে সুতো আবার কেউবা বাঁশের চটি অথবা ছন দিয়ে বানাচ্ছে চাটাই আর চারপাশে পিঁড়িতে কোঁচনীরা বসে বসে পান চিবুচ্ছে এবং গল্প করতে করতে প্রাণ খুলে হাসছে হচ্ছে কোঁচপাড়ার গোটা গ্রামের দৃশ্য ঝিনাইগাতী উপজেলা সদর থেকে মাত্র / কিঃ মিঃ উত্তরে নওকুচি রাংটিয়া গ্রামের অবস্থান নওকুচি গ্রামের মোড়ল ধীরেন্দ্র কোঁচ এবং রাংটিয়া গ্রামের মজেন্দ্র কোঁচের সাথে আলাপ করে জানা যায়, কিভাবে তারা বাপ-দাদার আমল থেকে দেশীয় তাঁতের মাধ্যমে কোঁচ শাড়ী চাটাই তৈরী করেন কোঁচ সম্প্রদায়ের নিজস্ব পদ্ধতির এই তাঁত চাটাই কত বছর আগে চালু হয়, তার সঠিক তথ্য তাদের জানা না থাকলেও তারা অনুমান করে ৫০/৬০ বছর আগে থেকে হয়তো বাঁশের তৈরী তাঁতে কাপড় বুনানোর প্রচলন এবং চাটাই বানানো শুরু হয় খট-খটি তাঁত বসানো থাকে বাড়ীর আঙ্গিনায় বড় বড় গাছের নীচে তাঁত শিল্পী (কোঁচনী) বসে কাঠের পিঁড়িতে পাশে রাখা হয় পানের বাটা তারপর বাঁশের নাছিতে সুতা ঢুকিয়ে চিকন বাঁশের সাহায্যে সমানতালে টেনে টেনে সুতা চালানো হয় সামনের দিকে আর বাঁশের নলি দিয়েই সুতা বোনা হয় কাপড়ে এভাবেই /১০ দিনে ২টি পাঁচ হাত লম্বা কোঁচনী শাড়ী তৈরী হয় যার খরচ পড়ে /৮শ টাকা কোঁচনীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, সুতার অগ্নি মূল্য এবং অর্থ সংকট না থাকলে তারা তাঁতের সাহায্যেই গামছা-লুঙ্গি, বিছানার এবং গায়ের চাদর বুনাতে পাড়বে সময়ের বিবর্তনে সব কিছুতে আধুনিকতার ছোয়া লাগলেও এখনো কোঁচ তাতীরা রয়ে গেছে সেই তিমিরেই উন্নত হয়নি তাদের জীবন মান এখনো চোখে দেখেনি তারা আলো ঝলমল বিদ্যুতের আলো তারপরও সকাল থেকে সন্ধা পর্যন্ত এসব কোঁচ তাতী বাড়ী কর্ম চাঞ্চল্যে থাকে মুখরিত ক্যাসেটে সিনেমার গানের তালে তালে কোঁচনী শিল্পীরা মনের আনন্দে তাঁত বুননের কাজ চাটাই তৈরী করে চলেছে শেরপুর জেলার সীমান্তবর্তী ঝিনাইগাতী উপজেলার নওকুচি রাংটিয়া কোচ পল্লী যেনো এক জীবন্ত তাঁত চাটাই পল্লী সরকারী সহযোগীতা পেলে ঝিনাইগাতীর কোঁচদের তৈরী কাপড় চাটাই এর পরিচিতি খ্যাতি অর্জন সম্ভব হবে বলে কোঁচ নেতাদের সাথে আলাপ করে জানা যায়

 
 

সাইফুল্লাহ মাহমুদ দুলাল-এর কবিতা পায়ের প্রতিবাদ

আমার বোন আর আলতা ফিতা চুড়ি পরে সাজবে না...
এক পায়ে তার এই নূপুরটি আর কোনোদিন বাজবে না।
ধ্বংসস্তূপে চাপা পড়া পায়ের ছবি, পায়ের প্রতিবাদ...
এ ট্র্যাজেডির নেই ভাষা নেই, জমাট ব্যথায় পাষাণ বুকটি বাঁধ।
কাঁদ বাঙালি কাঁদ। আমার বোনের দুঃখ-ঘৃণা, পায়ের প্রতিবাদ..

 
 

হুমায়ূন আহমেদের শেষ দিনগুলো


স্টাফ রিপোর্টার॥
হুমায়ূন আহমেদের মৃত্যুর আগের শেষ দিনগুলোর নানা বিষয় নিয়ে রচিত হয়েছে ‘হুমায়ূন আহমেদের শেষ দিনগুলো’। বইটি লিখেছেন প্রবাসী লেখক ও প্রকাশক বিশ্বজিত সাহা। ২৯ মার্চ নিউ ইয়র্কের জ্যাকসন হ্ইাটসে এক অনুষ্ঠানে বইটির মোড়ক উম্মোচন করা হয়। জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ড. আব্দুল মোমেন বইটির মোড়ক উম্মোচন করেন।
ড. মোমেন বলেন, ‘নিউ ইয়র্কে হুমায়ূন আহমেদের একজন ঘনিষ্ট ও আস্থাভাজন লোক হিসেবে বিশ্বজিতকে সবাই চেনেন। মৃত্যেুর আগের শেষ দিনগুলো হুমায়ূন ভক্তদের অনেক প্রশ্নের সঠিক জবাব পাবে বলে আমি মনে করি। এছাড়াও হুমায়ূন আহমেদের চিকিৎসা সংক্রান্ত নানা সন্দেহ কেটে যাবে এই বইটি পড়লে।’ তিনি বলেন, ‘শেষদিন চিকিৎসার সময় পর্যন্ত বিশ্বজিত ছিলেন হুমায়ূন আহমেদের সঙ্গে ছায়ার মতো। তাই বিশ্বজিত শাহা’র লেখায় হুমায়ুন ভক্ত অনেক তথ্য জানতে পারবে। ভয়েস অব আমেরিকার বাংলা বিভাগের প্রধান রোকেয়া হায়দার বলেন, ‘হুমায়ূন বাংলা সাহিত্য জগতের এক অসাধারণ ব্যক্তিত্ব। তার জীবনের শেষ দিনগুলি যেন তার গল্পের মতোই নানা অজানা ঘটনাবলীর মধ্যে হারিয়ে গেল। অনেক প্রশ্ন দেখা দিল, যার সঠিক উত্তর মেলেনি। বিশ্বজিত সাহা সেই শেষ মুহূর্তেও ঘটনাবলী পর পর সাজাতে গিয়ে একটি দিনপঞ্জিকা তুলে ধরেছেন। গ্রন্থটির ওপর আরো আলোচনা করেন, জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের কালচারাল মিনিস্টার অধ্যাপক মমতাজউদদীন আহমেদ, সাংবাদিক মঞ্জুর আহমেদ, প্রাবন্ধিক, কলামিস্ট হাসান ফেরদৌস, কলামিস্ট নাসিমুন নাহার নিনি। নিউইয়র্ক, নিউজার্সী, ফিলাডেলফিয়া, ওয়াশিংটন থেকে আগত উল্লেখযোগ্য সংখ্যক কবি-সাংবাদিক-লেখক-সাহিত্যিক-শিল্পী এবং সাহিত্যানুরাগীদের উপস্থিতিতে প্রকাশনা উৎসবটি হয়ে ওঠে  শিল্প সাহিত্য অঙ্গনের তারার মেলা। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন সেমন্তী ওয়াহেদ। উদ্বোধনী সঙ্গীত পরিবেশন করেন কানেকটিকাট থেকে আসা শিল্পী শান্তা নাগ। ‘জগতে আনন্দলোকে’ এবং ‘এ কি লাবণ্য’ দু’টি রবীন্দ্র সংগীত পরিবেশন করেন তিনি। গ্রন্থটির প্রকাশক প্রকৌশলী মেহেদী হাসান শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন। বইয়ের বিশেষ অংশ আবৃত্তি করেন আবীর আলমগীর এবং ফারুক ফয়সল। হুমায়ূন আহমেদের পছন্দের গান ‘নিশা লাগিল রে’ পরিবেশন করেন শিল্পী স্বপ্না কাওসার।

 
 

অমর একুশে গ্রন্থমেলা-২০১৩ বইপ্রেমীদের সমাবেশের স্থান


তরিকুল আলম নিপ্পন ॥
অমর একুশে গ্রন্থমেলা এবছরে নতুন শৈলীতে মঞ্চস্থ হতে আবারও বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে ফিরে এসেছে। মাসব্যাপী মেলার দোলায় উদ্বোদনী দিন থেকে বিপুল সংখ্যক লেখক,পাঠক এবং প্রকাশকদের আগমন ঘটছে যা প্রকাশকদের চোখে প্রনবন্ত ব্যবসার প্রতিফলন প্রতিয়মান হচ্ছে। বাংলা একাডেমির উপ পরিচালক মোরশেদ আনোয়ার বলেন, প্রতিদিন বিপুল সংখ্যক দর্শণার্থীরা পূর্ণোদ্যমে মেলায় আসছে। অমর একুশে গ্রন্থমেলায় প্রতিদিন আসছে নতুন বই। নতুন বইয়ের গন্ধ আর দৃষ্টিনন্দন প্রচ্ছদ বই মেলাকে করেছে আরও আকর্ষণীয়। এবারের বইমেলায় গণজাগরনের সুর ভেসে এসেছে। অমর একুশে বইমেলায় লেখক-পাঠক-প্রকাশক আর দর্শনার্থীদের অনেকেই যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে গণজাগরণ আন্দোলনের সাথে একাতœতা প্রকাশ করেছেন। এবারের ফাগুনের বুকের ভেতর যে আগুন আছে তা দেখা গেছে ফাল্গুনের প্রথম দিন বই মেলায়। বই মেলাতেও  তিন মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।  অমর একুশে বই মেলা ২০১৩ কাটছে হুমায়ুন আহমেদবিহীন। তার শূন্যতাকে ভুলে থাকতে,তাকে স্মৃতির পাতায় ধরে রাখতে,তার সর্বশেষ প্রকাশিত বই কিনতে পাঠক বই মেলায় ভীড় জমিয়েছে। কিং বদন্তী হুমায়ুন আহমেদকে প্রচ্ছদ করে স্টল দিয়েছেন অন্যপ্রকাশ। এই দোকানে পাঠকের সমাগম বেশী দেখা যায়। প্রচ্ছদটি “কিং বদন্তী হুমায়ুন আহমেদ-নয়নে তোমারে পায়না দেখিতে,রয়েছে নয়নে নয়নে” নামে প্রদর্শিত করা হয়েছে। “হুমায়ুন আহমেদের শেষ দিনগুলো”  নামে একটি বই বের হয়েছে যাতে জননন্দিত লেখক হুমায়ুন   আহমেদ নিউইয়র্কে চিকিৎসাধীন দিনগুলোর অজানা তথ্যের বর্ণনা রয়েছে। এবারের গ্রন্থমেলায় তুলনামুলক গত বছরের চেয়ে কম বই এসেছে। একাডেমির সমন্বয় ও জনসংযোগ উপবিভাগ থেকে পাওয়া তথ্যানুযায়ী,মেলার প্রথম ১৪ দিনে এক হাজার চারশত ছিয়াশিটি নতুন বই প্রকাশিত হয়েছে।২০১২ সালের বই মেলায় প্রথম দুই সপ্তাহে এক হাজার সাতশত তেতাল্লিশটি নতুন বই প্রকামিত হয়েছিল। সেই হিসাবে দুইশত সাতান্নটি নতুন বই কম প্রকাশিত হয়েছে এ বছরে।  গতকাল শুক্রবার মেলার ১৫ তম দিনে সকাল ৯ টায় শিশু-কিশোরদের সংগীত প্রতিযোগিতার প্রাথমিক বাছাই পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। আর বিকেলে অনুষ্ঠিত হয় “গবেষক-সম্পাদক আবদুল কাদির” শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। এতে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক গোলাম মুস্তফা। কবি আবু বকর সিদ্দিকের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন অধ্যাপক ভীষ্মদেব চৌধুরী,গবেষক সলিমুল্লাহ খানও হাবিব রহমান। সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে আবৃত্তি করেন কাজী আরিফ,ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়,হুসনেয়ারা রুবী এবং মিজানুর রহমান। সংগীত পরিবেশন করেন সাংস্কৃতিক সংগঠন ও সুরতাল সংগীত একাডেমী এবং নৃত্য  পরিবেশন করেন সুকন্যা নৃত্যাঙ্গন।

 
 

রেপিডএর ইদ্ধ্যেগে দুস্থ মানুষের মাঝে শীত বস্ত্র কম্বল বিতরন


লাকাী আখতার লামিয়া॥
আমরা আছি দুস্থ মানুষের পাশে মুসলিম এইড ইউকে অনুদানে সেচ্ছা সেবী সংগঠনে (রেপিড) এর মাধ্যমে গত ৮-২-১৩ ইং তারিখে ইব্রাহীমপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অসহায় ও দুস্থ মানুষের মাঝে ২শ শীত বস্ত্র কম্বল বিতরন করা হয়।। এতে মুসলিম এইড ইউকের দাতা সংস্থার প্রধান কার্যালয় এর উর্ধতন কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন এবং আসক পাইভেশন এর নির্বাহী পরিচালক মোঃ শামছুল হক (নিউটন) প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অন্যান্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন (রেপিড) স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার চেয়ারম্যান রিনা আমিন  এবং দৈনিক সন্ধ্যা বানীর জেনারেল ম্যানেজার খন্দকার সাইফুল ইসলাম সজল, লায়ন জি এম উমর ফারুক পরিচালক (রেপিড), সিলেট বিভাগের পরিচালক (রেপিড) রাকিব আল মাহমুদ সহ আরো অনেকে। উক্ত স্থানে অসহায় বৃদ্ধা ,নারী, দুস্থ শিশুদের উপস্থিতির হার অনেক বেশি দেখা যায়। শীত বস্ত্র বিতরনের সময় হুইল চেয়ারে করে আসা এক জন প্রতীবন্ধী বৃদ্ধ পুরুষ অনুদানের কম্বল হাতে নিয়ে অশ্র“ চোখে বলেন স্যার  আপনাদেরকে আল্লাহ ভালো রাখুক । আমি খুব কষ্ট পাচ্ছিলাম এ অনুদানে আমার কষ্ট দুর হলো যা সারা জীবন আমার মনে থাকবে। রেপিড’র চেয়ারম্যান রিনা আমিন অনুভুতি ব্যক্ত করে বলেন এ ধরনের কর্যক্রম বাংরাদেশের তৃণমূল পর্যায়ে পৌছে দেওয়াই আমাদের লক্ষ্য ও ইচ্ছা। এর সাথে সাথে মুসলিম এইড ইউকে ’র সকল উর্ধ্বতন কর্মকর্তা- কর্মচারী সকলের র্দীঘায়ু কামনা করি।

 
 

“শুভ জন্মদিন’র” শুভেচ্ছা


আজ ২ ফেব্র“য়ারী দৈনিক অন্যদিগন্ত এবং এনিউজ২৪ডটনেট’র সম্পাদক মোহাম্মদ মাসুদ’র “শুভ জন্মদিন”। ১৯৭৬ সনের এ দিনে কুমিল্লা জেলার বুড়িচং থানাধীন বাকশীমূল গ্রামের এক সম্ভান্ত মুসলিম পরিবারে তিনি  জন্ম গ্রহণ করেন। শুভ জন্মদিন উপলক্ষে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। তার কর্মময় জীবন আরো সার্থক হোক, সুন্দর হোক এ প্রত্যাশা রেখে সুস্থ্য ও দীর্ঘায়ু জীবন কামনা করছি।
শুভ কামনায়........
দৈনিক অন্যদিগন্ত ও এনিউজ২৪নেট পরিবারের সকল সদস্যবৃন্দ।

 
 

Page 1 of 4

মতামত

ইদানিং হঠাৎ এক বুদ্ধিজীবী এবং দুষ্ট বান্দরের গল্প!

গোলাম মাওলা রনি: বিষয়টি প্রথমে আমি বুঝতেই পারিনি। যখন পারলাম তখন একটার পর একটা অদ্ভূত ঘটনা ঘটতে লাগলো। হঠাৎ করেই একদিন...

স্বাভাবিক মৃত্যুর নিশ্চয়তা চাই

হঠাৎ করেই যেন দেশে খুনের ঘটনা বেড়ে গেছে। বৃহস্পতিবার যুগান্তরে প্রকাশিত হয়েছে ৩৩টি খুনের খবর। প্রথম পৃষ্ঠায় ছাপা...

Joomla Templates and Joomla Extensions by JoomlaVision.Com

সাহিত্য-সংস্কৃতি

বাংলাদেশের সংস্কৃতি

  বাংলাদেশের সংস্কৃতি বলতে দক্ষিণ এশিয়ার দেশ বাংলাদেশের গণমানুষের সাহিত্য, সংগীত, নৃত্য, ভোজনরীতি, পোষাক, উৎসব ইত্যাদির মিথষ্ক্রীয়াকে...

24 November 2013 Read more...
Joomla Templates and Joomla Extensions by JoomlaVision.Com

স্বাস্থ্য

প্রাকৃতিক ফ্যামিলি প্ল্যানিং

এনিউজ২৪.নেটঃ ন্যাচারাল বা প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে ফ্যামিলি প্ল্যানিং করা বেশ সুবিধাজনক। তিনভাবে ন্যাচারাল ফ্যামিলি প্ল্যানিং করা...

Read more...
Joomla Templates and Joomla Extensions by JoomlaVision.Com

লাইফস্টাইল

মালাইচপ

উপকরণ : স্পঞ্জ রসগোল্লা ১০টি, দুধ ১ লিটার, চিনি আধা কাপ, ঘি ১ টেবিল চামচ। যেভাবে তৈরি করবেন ১. দুধ জ্বাল দিয়ে ঘন করে এর মধ্যে চিনি দিন।...

Read more...
Joomla Templates and Joomla Extensions by JoomlaVision.Com

সম্পাদক: মোহাম্মদ মাসুদ, প্রধান সম্পাদক: এস,এম মাসুদ রানা
বার্তা সম্পাদক : মো: সেলিম কবির, ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : ইমরান চৌধুরী বাবু


 

একটি অন্যভিশন লি. এর প্রতিষ্ঠান

৯২,শহীদ মুক্তিযোদ্ধা ফারুক ইকবাল ও তসলিম সড়ক,৫ম তলা, ডিআইটি রোড,মালিবাগ রেলগেইট, ঢাকা -১২১
ফোন: +৮৮০১৫৫৬৬৩২৮০৭ (সম্পাদক), বার্তা সম্পাদক: +88-01712209796,
নিউজ সেল রুম:
+8801911912586 ;01919823280
;
01913505761 বিজ্ঞাপন বিভাগ: +88028318527
Email: anews24x7@gmail.com,
anews24x7@ymail.com, editoranews24@gmail.com